Categories
Speak English

আপনি কি ইংরেজিতে কথা বলতে চান?

বর্তমান যুগে ইংরেজি ভাষায় কথোপকথনে অভ্যস্ত না হতে পারলে অনেকসময় জীবনে এগিয়ে যাওয়ার পথ ক্রমশ সংকীর্ণ হতে থাকে এবং কম বেশি প্রায় প্রতিটি বাঙালি ছাত্রজীবন থেকে চাকরি জীবনে বেশ কিছু সময়ে এই সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। কিন্তু মানুষকে তো সময়ের সাথে নিজেকে পাল্টে ফেলতে হয় এবং হঠাৎ নিজেকে পাল্টানো খুব একটা সহজ কাজ নয়। তবু জীবন যাত্রাকে উন্নত করার জন্য মানুষ নতুন কিছু অভ্যাস তৈরির চেষ্টা করে, ইংরেজিতে কথা বলাটা তাদের মধ্যে অন্যতম অভ্যাস যা শেখাটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ইংরেজি বিশ্বের সর্বাধিক কথ্য ভাষা। তবুও দশজনের মধ্যে দুজন ছাড়া বাকি কেউই ইংরেজি বলতে পারেন না। আবার ধরুন, আপনি যদি বিদেশে বেড়াতে যান এবং সেখানকার ভাষা না জানেন তো কেমন সমস্যায় পড়বেন ! কিন্তু যদি আপনি ইংরেজি বলতে পারেন তবে সেই সমস্যায় আর আপনাকে পড়তে হবে না, কারণ সেখানে বেশিরভাগ মানুষ ইংরেজি বলতে ও বুঝতে সক্ষম হবে। ইংরেজি হলো বিজ্ঞান, কম্পিউটার এবং পর্যটনের ভাষা। ইংরেজী ভাষায় অভ্যস্ত হলে তা আপনার দেশের মধ্যে কোনও বহুজাতিক সংস্থায় চাকরি পাওয়ার বা বিদেশে কাজ সন্ধানের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে। যেহেতু ইংরেজি ভাষা পৃথিবীর বেশিরভাগ মানুষের জানা, তাই এই ভাষার মাধ্যমে অন্যান্য দেশের মানুষের সাথেও নানাভাবে সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারেন। বেশিরভাগ বৈজ্ঞানিক পেপার ইংরেজি ভাষায় লেখা হয়,  তাই ইংরেজি না জানলে সেই পেপারের অর্থ বুঝতে পারবেন না।  আপনি যদি সমস্ত ইংরেজী কথা বলতে ও বুঝতে পারেন, হলিউড এর আপনার পছন্দসই বই, গান, চলচ্চিত্র এবং টিভি শো উপভোগ করতে আপনার আর অনুবাদ এবং সাবটাইটেলগুলির উপর নির্ভর করতে হবে না। ইন্টারনেটে পাওয়া বেশিরভাগ কন্টেন্ট ইংরেজিতে হয়, তাই আপনি যদি ইংরেজি না জানেন তবে সেই লেখার মানে আপনি বুঝতে পারবেন না।

এতো সব গুরুত্বপূর্ণ কারনের জন্য আপনি হয়তো বহুবার ইংরেজি শেখার চেষ্টা করেছেন, চেষ্টার পর আপনি ইংরেজি ভাষার মানে বুঝলেও সেই ভাষায় কথোপকথনে অভ্যস্ত হতে পারেননি। তখন বহু অনলাইন অ্যাপ, ইংরেজি ভাষার কোর্সের উপর নির্ভরশীল হতে হয়েছে তবু হয়তো আপনার আশা পূরণ হয়নি।

একবারও ভাবেন না ছোটো থেকে স্কুলে ইংরেজি ভাষা শেখার পরেও কেনো আপনি এই ভাষায় অভ্যস্ত হতে পারেননি?

ইংরেজি গ্রামারে দক্ষ হওয়ার পরেও ইংরেজি বলার সময় কেনো অনেক সময় নিচ্ছেন?

ইংরেজি নোভেল, গল্পো, কবিতা, নাটকের মোটা মোটা বই পড়ার পরেও কেনো এই ভাষায় কথা বলতে পারেন না?

স্কুলের পরে কলেজেও ইংরেজি ভাষা পড়তে হতো, তারপরেও কেনো এই ভাষায় কথা বলা শিখতে পারলেন না?

ছোটো থেকে বাংলা মিডিয়ামে পড়ার পর ইংরেজি বলতে এতো ভয় কেনো? ইংরেজিও তো পড়েছিলেন।

ইংরেজি গান, সিনেমা দেখতে ভালোবাসলেও সেই ভাষায় কথা কেনো বলতে শিখলেন না?

ইংরেজি না বলতে পারার কারণে সমবয়সী বা কখনো বয়সে ছোটো কারোর কাছেও হাসির পাত্র হচ্ছেন?

জীবনের বেশিরভাগ সময়ে ইংরেজি পড়ার পরেও কেনো আজ আলাদা ভাবে অ্যাপ বা অন্যান্য উপায় অবলম্বন করতে হয় ইংরেজিতে কথা বলার জন্য?

ইংরেজিতে বিভিন্ন গল্পো লেখার পরেও সেই একই ভাষায় কথা বলতে এতো ভয় কেনো ?

ইংরেজি বলতে আপনার সমস্যা ঠিক কোথায়? আপনার বুদ্ধিমত্তার ক্ষমতা থাকার পরেও শুধু ইংরেজিতে কথা বলতে পারেন না বলে চাকরি পেতে সমস্যা হচ্ছে। এই সমস্যা কেনো হয় আপনার সাথে? কি খামতি ছিল আপনার পড়াশোনায়? আমার এই বই এই সকল কিছু নিয়েই। দীর্ঘ ৮ বছর নানাভাবে গবেষণার পর প্রত্যেকের সমস্যার জায়গা বোঝার পর আমি এই বই লিখতে শুরু করি। মানুষের চরিত্র ভিন্ন তাই তাদের সমস্যা ভিন্ন। এই বইতে সকলের সব সমস্যার সমাধান করা হয়েছে। আসলে ছোটো থেকে আপনারা যাই ইংরেজি বই পড়ে থাকুন না কেনো, সেখানে একটা চ্যাপ্টার সবসময় বাদ পড়ত, হ্যাঁ ! সমস্যা আপনার গোঁড়াতেই। তাই আমার এই বই গোঁড়া থেকে সকল সমস্যার কথা মাথায় রেখেই লেখা হয়েছে। তবে বলে রাখা ভালো, আপনি যদি ইংরেজি ভাষা একেবারেই না জানেন তবে এই বই আপনার সাহায্য করতে পারবে না। এই বই তাদের জন্য যারা অনেক চেষ্টার পরেও, সবকিছু দক্ষতার সাথে জানার পরেও কোনো কারণে ইংরেজিতে কথোপকথন করতে পারেন না।

“I have been teaching students English speaking course since 2011. I have seen that most of the students have fear about English language. They don’t have self confidence about themselves. They think what people think about them if they make mistakes while speaking in English.”  

উপরের লাইন গুলির মানে বুঝতে না পারলে আপনার উচিত ছোটোদের ইংরেজি ও গ্রামার বই পড়া। অপরদিকে, যারা এই লাইন গুলির মানে বুঝতে পেরেছেন কিন্তু এই একই কথা মুখে বলতে সমস্যায় পরেন, আমার এই বই তাদের জন্য। এই বইতে পৃষ্ঠা সংখ্যা হয়তো কিছুটা বেশিই, কিন্তু একমাত্র এই বই পারে আপনার উন্নতির পথ খুলে দিতে তাও মাত্র চার মাসে। আপনার আত্ম – বিশ্বাস ও জ্ঞানের পরিধি বাড়ানোর উদ্দেশ্যে এই বই লেখা এবং এর পৃষ্ঠা সংখ্যা ও অর্থমূল্য দুটোই আপনার সর্বাধিক উন্নতির মূল্যের তুলনায় কম। কিভাবে খুব অল্প সময়ে সঠিক ইংরেজিতে কথা বলা যায়, কিভাবে নিজের মাতৃ ভাষাকে তার যথা স্থানে রেখে ইংরেজিতে খুব তাড়াতাড়ি কিছু ভাবা যায় এবং ইংরেজিতেই তার প্রকাশ করা যায়, এই বই এর প্রতিটা শব্দ আপনাকে সেটাই শেখাবে। আপনার উন্নতি আপনারই হাতে, আমার এই বই শুধু মাত্র আপনাকে সঠিক পন্থা অবলম্বন করতে শেখাবে। ছোটো থেকে অজানা সেই চ্যাপ্টার সম্পর্কে সম্পূর্ণ জ্ঞান উপলব্ধি করতে পারবেন আপনার এই বই পড়লে, তাও মাত্র চার মাসের মধ্যে। তাই Ranjan Barman এর এই সর্বাধিক বিক্রিত বই “The Secret Art of Speaking English” আজই আপন করে নিন শুধুমাত্র নিজের স্বার্থে।

Book: ইংরেজিতে কথা বলার রহস্যঃ The Secret Art of Speaking English
Playstore: https://bit.ly/37R5pnA
Amazon: https://amzn.to/37NdYQd
Pothi: https://pothi.com/pothi/node/203884

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *